March 26, 1971: Declaration of Independence

Mashuqur Rahman

Mashuqur Rahman


[Headlines: Straits Times, March 27, 1971The Age, March 29, 1971New Age, January 22, 2008.]

In their March issue, Daily Star newspaper’s monthly magazine Forum has published the article on Bangladesh’s declaration of independence. The article, entitled “Swadhin Bangla Betar Kendro and Bangladesh’s Declaration of Independence“, is based on the post we wrote in January.

The March issue of Forum commemorates March 26, 1971, Bangladesh’s independence day. Of particular note are reprinted articles originally written in March 1971 by Rehman Sobhan and Dr. Hameeda Hossain, who were Executive Editor and Editor respectively of the original Forum. These articles offer a fascinating glimpse into the days leading up to the independence of Bangladesh.

[Mashuqur Rahman with MMR Jalal.]

The last message from Dacca Betar Kendro was from announcer Nazma Akhtar:

The 75 million people of Bangla Desh, freedom-loving as they are, have been subjected to brutal genocide by the army. The people of Bangla Desh will shed more blood rather than forget the injury. We will never allow the sacrifice to go in vain.

Soon after the Pakistan army took over Dacca Betar Kendro in the early hours of March 26, 1971, they renamed the radio station as “Radio Pakistan Dacca” and used it to announce martial law orders. The Pakistan army’s attempt at silencing the voice of the Bengalis had begun. Bengalis however fought back. The war of Bangladesh’s liberation had begun.

On the evening of that same day a small radio station started broadcasting defiantly in the face of the Pakistan military’s bloody onslaught on the Bengalis. The clandestine radio station, located in Kalurghat, north of the city of Chittagong, declared to the world: “The Sheikh has declared the 75 million people of East Pakistan as citizens of the sovereign independent Bangla Desh.” The station called itself Swadhin Bangla Biplobi Betar Kendro (Free Bengal Radio Station). At a later stage, the word “Biplobi” [revolutionary] was dropped from the station name.

For the next four days the radio station engaged in a propaganda battle with the Pakistan army. While the Pakistan army claimed all was calm in Bangladesh, the clandestine radio station declared liberation forces were marching on the capital and Pakistani soldiers were surrendering. While the Pakistan army claimed it had crushed the will of the Bengalis, the clandestine radio station declared that the Pakistani military governor General Tikka Khan had been assassinated. While the Pakistan army claimed the Bengalis had been defeated, the clandestine radio station claimed to have formed a provisional government of Bangladesh.

In those early days of the genocide, Swadhin Bangla Betar Kendro declared to the world that Bengalis would not give up, that Bengalis would fight, and that the sacrifice would not go in vain. And the world listened. The small radio station in Kalurghat in those four days refused to be silenced. It rallied the morale of the Bengalis and it frustrated the Pakistani army.

The men and women of Swadhin Bangla Betar Kendro and the men of the East Bengal Regiment who defended the station from attack, announced to the world that an organized Bengali resistance was fighting back, ensured that Pakistani tanks and airplanes could not silence the voice of the 75 million people of Bangladesh.

Recently the Bangladesh military government decided to rewrite the history books in Bangladesh to more accurately reflect the history of how the independence of Bangladesh was declared on March 26, 1971. In the tug of war between the Awami League and the Bangladesh Nationalist Party, the history of Bangladesh has been rewritten several times over the past three decades. The AFP reports on the controversy and the recent change:

School textbooks in Bangladesh have been revised to reflect the latest government version of the role of two slain leaders when the country won independence in 1971, an official said Wednesday. Sheikh Mujibur Rahman, who led Bangladesh’s bitter independence struggle against Pakistan, is now once again referred to as the “father of the nation,” said Mosir Uddin, head of the National Curriculum and Textbook Board. Sheikh Mujib, who died in a military coup in 1975, is credited with the independence declaration at midnight on March 25, 1971 and referred to by his popular name of “Bangabandhu” or friend of Bengalis in the new texts.

In another change, former president Ziaur Rahman, who was slain in an attempted military coup in 1981, was acknowledged to have made an independence proclamation “on behalf of Bangabandhu at Kalurghat Radio Station in Chittagong, on March 27”, he added. School textbooks containing the changes have already been printed and would be read in the schools from January 2008, Uddin said.

The place of the two leaders in the nation’s history remains a deeply sensitive subject in Bangladesh. Since 1991, textbooks have been subject to alterations by governments led alternately by Sheikh Mujib’s daughter, Sheikh Hasina Wajed, and Ziaur’s widow, Khaleda Zia. The two women are bitter rivals and lead the country’s two main political parties. Supporters of Sheikh Hasina’s Awami League believe that independence was proclaimed by a regional party leader acting on the instructions of Sheikh Mujib. Members of Zia’s Bangladesh Nationalist Party (BNP), however, say it was the former army chief Ziaur who made the historic proclamation.

In revising the history books, the current government relied on the government’s official history of the war of independence published in 1982:

“This is more authentic than the others we have seen in the past. This is based on authentic documents. All the references are taken from the official history of the war of independence published by the information ministry in 1982,” he said.

The official history has given rise to the following timeline:

  • Sheikh Mujibur Rahman wrote down an independence declaration sometime after midnight on the morning of March 26, 1971.
  • Sheikh Mujib’s declaration was broadcast on the day of March 26, 1971 from Kalurghat transmitter in Chittagong. However, very few people heard that broadcast.
  • Ziaur Rahman, then Major Ziaur Rahman, broadcast a declaration on behalf of Sheikh Mujibur Rahman on March 27, 1971 from Kalurghat that was picked up by the foreign press and the world came to know about Bangladesh’s declaration of independence.
  • The above timeline is reflected in the Wikipedia article on Bangladesh’s Declaration of Independence, in the Wikipedia article on the Kalurghat radio transmitter, and in the Virtual Bangladesh article on the Declaration of Independence, among others. According to all three articles, the timeline suggests that until Major Ziaur Rahman broadcast his speech on March 27, the outside world did not hear about Bangladesh’s independence. For example, the Wikipedia Kalurghat article states:

    An English translation of the first declaration of independence by MA Hannan on 26th March 1971… It is believed that the first declaration of independence was not widely noticed by international media and the international community. Major Ziaur Rahman’s opening words in Bangla, “Ami Major Zia bolchi”, that is, “I am Major Zia speaking,” were picked up by news agencies, and were given wide publicity across the globe. Ami Major Zia bolchi were followed by declaration of a sovereign and independent Bangladesh… These words were picked up first by a Japanese ship anchored in Chittagong harbour, and were flashed to the world. News of Zia’s declaration was first broadcast by Radio Australia, and the world at large came to know of birth of Bangladesh.

    The Virtual Bangladesh article states:

    Soon after the Pakistani army crackdown on the night of March 25, 1971, the first declaration of independence was made over the radio by MA Hannan. Very few people heard this declaration and Major Zia’s famous “Ami Major Zia bolchi” declaration over Chittagong radio on March 27 was picked up by foreign news agencies and was given wide publicity.

    The facts and the available documentary evidence however paint a starkly different picture. A survey of leading English language newspapers from every continent in the world clearly shows that the world came to know about the independence of Bangladesh from Sheikh Mujib’s original message received in Calcutta on the morning of March 26 and from broadcasts by Swadhin Bangla Betar Kendro on the evening of March 26.

    The Statesman, New Delhi edition, on March 27, 1971 explains the two messages:

    Sheikh Mujibur Rahman made two broadcasts on Friday following the Pakistan troops move to crush his movement, says UNI. In a message to the world broadcast by an unidentified wireless station monitored in Calcutta, the Awami League leader declared that “the enemy” had struck and that the people were fighting gallantly. In a subsequent broadcast over a radio station, describing itself as “Swadhin Bangla Betar Kendra” (free Bengal wireless station), monitored in Shillong, he proclaimed Bangla Desh an independent republic.

    The Statesman, Calcutta edition, on March 27, 1971 lays out the timeline of the two messages from the previous day:

    Mr. Rahman, in a message to the world broadcast by an unidentified wireless station monitored in Calcutta this morning declared that the enemy had struck and that the people were fighting gallantly. In a subsequent broadcast over a radio station, describing itself as “Swadhin Bangla Betar Kendra” (free Bengal wireless station) monitored in Shillong, Mr. Rahman proclaimed Bangla Desh an independent republic.

    The Times of India, Bombay edition, on March 27, 1971 provides the text of the message received from the first broadcast in the morning:

    Sheikh Mujibur Rahman said in a message to the world today that the people of Bangla Desh were fighting gallantly for their freedom. The message, broadcast by an unidentified wireless station, was picked up here. It was believed that the station was located at Chittagong or Chalna in East Pakistan. Mr. Rahman said in the message: “Pakistani armed forces suddenly attacked the East Pakistan Rifles base at Bilkhana and Rajarbagh near here at zero hours today, killing a lot of [text missing]… “Stern fighting is going on with the EPR in Dacca and the police force. The people are fighting the enemy gallantly for the cause of the freedom of Bangla Desh… Every section of the people of Bangla Desh must resist the enemy forces at all costs in every corner of Bangla Desh… May Allah bless you and help you in the struggle for freedom from the enemy. Jai Bangla.”

    The Statesman, New Delhi edition, on March 27, 1971 also provides the text of the first message:

    Mr. Rahman said: “Pakistan armed forces suddenly attacked the East Pakistan Rifle base at Pielkhana and Rajabag police station in Dacca at zero hours on March 26, killing a number of unarmed people. Fierce fighting is going on with East Pakistan Rifles at Dacca… People are fighting gallantly with the enemy for the cause of freedom of Bangla Desh. Every section of the people of Bangla Desh are asked to resist the enemy forces at any cost in every corner of Bangla Desh. May Allah bless you and help in your struggle for freedom from the enemy. Jai Bangla.”

    In the evening on March 26, 1971 Swadhin Bangla Betar Kendro at Kalurghat came alive for the first time and broadcast multiple messages. These broadcasts were all monitored and reported on. Most significantly, in one report from Kalurghat on the evening of March 26, 1971, the announcer was monitored in India as saying: “The Sheikh has declared the 75 million people of East Pakistan as citizens of the sovereign independent Bangla Desh.” This announcement as well as the previous message was flashed around the world on newswires on the evening of March 26, 1971. Bangladesh’s declaration of independence thus became front page news on nearly all, if not all, major newspapers around the world published the following day on March 27, 1971. A sampling of the reports from March 27, 1971 on English language newspapers on every continent of the world announcing Sheikh Mujib’s declaration of independence can be found at the end of this post. There is simply no doubt that Bangladesh’s declaration of independence was heard around the world on March 26, 1971 from Swadhin Bangla Betar Kendro at Kalurghat and reported on in world newspapers the following morning.

    According to an article in the Bangladesh Observer published on April 23, 1972 the first persons to broadcast Sheikh Mujibur Rahman’s declaration of independence in the evening on March 26, 1971 from Swadhin Bangla Betar Kendro in English were Ashikul Islam, a WAPDA engineer, and in Bengali, Abul Kashem Sandwip. Later in the evening MA Hannan also broadcast the declaration in a speech. Swadhin Bangla Betar Kendro continued to broadcast from Kalurghat from March 26 to March 30, when Kalurghat was abandoned due to Pakistani air attacks.

    On March 28, 1971 Indian newspapers reported that a Major “Jia Khan” or “Zia Khan” had also broadcast an announcement on March 27. Zia Khan was identified by the announcer as “Chief of the Liberation Army of Bangla Desh.”

    The Statesman, New Delhi edition, on March 28, 1971 reported:

    In another broadcast the radio claimed that freedom-loving people of Baluchistan, the North West Frontier Province and Pakhtoonistan had declared independence, following the example of Bangla Desh. The person who spoke on the radio was identified as “Major Jia, Chief of the Liberation Army of Bangla Desh”.

    The Times of India, Bombay edition, on March 28, 1971 reported:

    Major Zia Khan, chief of the Bangla Desh liberation army, declared over the free Bangla Radio tonight that Bangla Desh would be rid of the Pakistani military administration in two or three days. The West Punjabi soldiers “will be annihilated” if they did not surrender, he said.

    The reports misidentified Major Ziaur Rahman as “Zia Khan” or “Jia Khan.” The reports did not make any mention of a declaration of independence by Major Zia on March 27, 1971. These two reports in the Indian newspapers on March 28 were not picked up by the world press. Beyond the Indian newspapers, a survey of major English language newspapers around the world on March 28, 1971 found no reports on Major Zia’s broadcast on March 27. Some relevant news reports from March 28, 1971 can be found at the end of this post.

    On March 28, 1971 broadcasts from Swadhin Bangla Betar Kendro monitored in India announced that a provisional government of Bangla Desh had been formed and that Major Zia Khan or Major Jia Khan (again misidentifying Major Ziaur Rahman) had been declared the temporary head of the provisional government. The Kalurghat broadcasts announced that the provisional government “would be guided by Banga Bandhu Mujibur Rahman.”

    The Statesman, New Delhi edition, on March 29, 1971 reported on a speech by Major Zia declaring himself the provisional head:

    In a broadcast over the Free Bangla Radio Major Jia Khan, commander-in-chief of the “liberation army” said: “I hereby assume the powers of the provisional head of the liberation army of Swadhin Bangla Desh… As provisional head I order the freedom fighters of Bangla Desh to continue the struggle till ultimate victory. Jai Bangla”. He said the enemy was bringing additional troops both by the sea and by the air. He appealed to all peace-loving peoples of the world to come to help of “the democratic minded fighting people of Bangla Desh.” Major Jia claimed that the “liberation army” had killed 300 men of the Punjab Regiment at Comilla. Other men of the regiment fled at the end of the fighting.

    This report of the formation of a “provisional government” with “Major Zia Khan” as its temporary head was picked up and widely reported in the world press on March 29, 1971. There was, however, no report of Major Zia’s declaration of independence in the world press on March 29, 1971.

    The official Bangladesh government document on the Liberation War, published in 1982 in 15 volumes called Bangladesh Swadhinata Juddho: Dalil Potro and used by the current military government to alter the text books, contains the text of Major Ziaur Rahman’s Declaration of Independence in Volume 3:

    Major Zia, Provisional Commander-in-Chief of the Bangladesh Liberation Army, hereby proclaims, on behalf of Sheikh Mujibur Rahman, the independence of Bangladesh.

    I also declare, we have already framed a sovereign, legal government under Sheikh Mujibur Rahman which pledges to function as per law and the constitution. The new democratic government is committed to a policy of non-alignment in international relations. It will seek friendship with all nations and strive for international peace. I appeal to all government to mobilize public opinion in their respective countries against the brutal genocide in Bangladesh.

    The government under Sheikh Mujibur Rahman is sovereign legal government of Bangladesh and is entitled to recognition from all democratic nations of the world.

    The date for this speech is given in the Dalil Potro as March 27, 1971. The speech is sourced in the Dalil Potro to The Statesman, New Delhi edition, on March 27, 1971. However the March 27, 1971 Statesman, New Delhi edition, does not contain this speech. The first references to Major Zia’s speech cited in the Dalil Potro appeared in the Indian newspapers on March 31, 1971. According to Indian reports the speech was broadcast from Swadhin Bangla Betar Kendro on the morning of March 30, 1971.

    The Statesman, New Delhi edition, on March 31, 1971 reported on page 9:

    Calcutta, Mar 30 — The government under Sheikh Mujibur Rahman is the sovereign legal government of Bangla Desh and is entitled to recognition by all democratic countries of the world, Maj Jia Khan, provisional Commander-in-Chief of the Liberation Army, declared this morning, reports UNI. In a broadcast over Free Bangla Radio on behalf of the Sheikh, Maj Jia Khan said: “The new democratic government is committed to a policy of non-alignment in international relations. It will seek friendship with all nations and strive for international peace… We have already formed a sovereign legal Government under Sheikh Mujibur Rahman which pledges to function as per law and the constitution… We therefore appeal to all democratic and peace-loving countries of the world to immediately recognize the legal democratic government of Bangla Desh.” He appealed to all governments to mobilize public opinion in their respective countries against the “brutal genocide” in Bangla Desh. Maj Jia Khan said the Pakistan government was trying to confuse and deceive the people of the world through contradictory statements. “But nobody will be deceived by Yahya Khan and his followers,” he said.

    The Times of India, Bombay edition, on March 31, 1971 reported on page 15:

    Calcutta, March 30. The government under Sheikh Mujibur Rahman is the sovereign, legal government of Bangla Desh and is entitled to “recognition from all democratic countries of the world.” Major Zia Khan, Provisional Commander-in-Chief of the Liberation Army, declared this morning. In a broadcast over Free Bangla Radio on behalf of the Sheikh, Maj. Zia Khan said: “The new democratic government is committed to a policy of non-alignment in international relations. It will seek friendship with all nations and strive for international peace.” Maj. Zia Khan began the broadcast with these words: “I, Major Zia, Provisional Commander-in-Chief of the Bangla Liberation Army, hereby proclaim on behalf of Sheikh Mujibur Rahman the independence of Bangla Desh. “I also declare,” he continued, “we have already formed a sovereign legal government under Sheikh Mujibur Rahman which pledges to function as per law and the constitution.”

    This speech by Major Zia on March 30 that was reported in the Indian press on March 31 was not widely reported in the world press. The declaration of independence, as announced on the morning of March 30, 1971 by Major Zia, was not reported in any of the English language world newspapers outside India that were surveyed. A sample of the world papers that did report on the March 30 speech can be found at the end of this post.

    After Swadhin Bangla Betar Kendro ended transmission at Kalurghat in the afternoon of March 30, 1971, Major Zia would make his way to Brahmanbaria and meet up with Major Khalid Musharraf and Major Shafiullah on April 3, 1971. He would go on to serve as a sector commander under Colonel MAG Osmani, the commander in chief of the Mukti Bahini (Bangladesh Liberation Army).

    Contrary to the conventional wisdom that has developed over the last three decades due to the constant rewriting of Bangladesh’s official history, the world press reports from late March 1971 make clear that Bangladesh’s declaration of independence was widely reported throughout the world based on the broadcasts from Swadhin Bangla Betar Kendro on March 26, 1971. There is no doubt that Sheikh Mujibur Rahman’s original message about attacks on EPR and police barracks in Dhaka at midnight was widely reported in the world press. Although Major Zia’s broadcasts from Kalurghat on March 28 about the creation of a provisional government were widely reported in the world press, Major Ziaur Rahman was not credited in the world press for declaring the independence of Bangladesh.


    Recordings: Swadhin Bangla Betar Kendro
    March 28, 1971 — March 30, 1971

    Click the button below or download a M3U AUDIO STREAMING of recordings of broadcasts by Swadhin Bangla Betar Kendro from March 28, 1971 to March 30, 1971. The recordings include broadcasts by Major Ziaur Rahman, Lieutenant Shamsher Mobin Choudhury, as well as from the civilian announcers of Swadhin Bangla Betar Kendro. Broadcasts are in both English and Bengali.

    [display_podcast]


    Video: Major Ziaur Rahman says he went on air on March 27, 1971.

    Bangladesh declares freedom: Foreign news reports
    March 27, 1971 — March 31, 1971[March 27, 1971.]– Statesman (New Delhi), India
    “Bangla Desh declares freedom — Rahman’s step follows army crackdown”Statesman (New Delhi), India
    “Two steps to freedom”

    Statesman (Calcutta), India
    “Bangla Desh declares independence — Street fighting in Dacca and Chittagong”

    Statesman (Calcutta), India
    “Proclamation by Rahman”

    Statesman (Calcutta), India
    “Chittagong Radio Station captured”

    Times of India (Bombay), India
    “Mujib proclaims free Bangla Desh”

    Times of India (Bombay), India
    “Gallant fight for freedom, Mujib tells the world”

    The Age, Australia
    “Dacca breaks with Pakistan”

    Daily Telegraph, United Kingdom
    “Civil war flares in E. Pakistan”

    Asahi Evening News, Japan
    “East Pakistan cut off from world as heavy fighting rocks cities”

    Baltimore Sun, USA
    “10,000 civilians reported killed in Bengal strife”

    Bangkok Post, Thailand
    “Pak near civil war”

    Boston Globe, USA
    “East Pakistan secedes, civil war breaks out”

    Buenos Aires Herald, Argentina
    “Bengali independence declared by Mujib”

    Christian Science Monitor, USA
    “East Pakistan in breakaway struggle”

    Chicago Tribune, USA
    “Pakistan Sheik arrested”

    Globe and Mail, Canada
    “Civil war in East Pakistan”

    Hong Kong Standard, Hong Kong
    “Mujib sets up independent republic”

    Los Angeles Times, USA
    “Civil war flares as East Pakistanis claim independence”

    Times of London, United Kingdom
    “Heavy fighting as Shaikh Mujibur declares E Pakistan independent”

    Times of London, United Kingdom
    “President says traitors must be punished”

    Philadelphia Inquirer, USA
    “Civil war hits E. Pakistan as rebels revolt”

    Pretoria News, South Africa
    “10000 slain in Pakistan civil war”

    San Francisco Chronicle
    “Civil War in East Pakistan — Fierce battles reported”

    Straits Times, Singapore
    “Mujibur proclaims Bangla Republic”

    Washington Post, USA
    “Rebel leader arrested in Pakistan war”

    [March 28, 1971.]

    Statesman (New Delhi), India
    “Secessionist forces offer stiff resistance”

    Times of India (Bombay), India
    “Tikka Khan is shot, Mujib promises victory in day or two”

    Boston Globe, USA
    “Government claims E. Pakistan victory”

    Chicago Tribune, USA
    “Civil war continues in Dacca”

    Manila Times, Philippines
    “10,000 killed in Pakistan”

    [March 29, 1971.]

    Statesman (New Delhi), India
    “Appeal to nations for recognition”

    Statesman (Calcutta), India
    “Provisional government of Bangla Desh formed”

    Times of India (Bombay), India
    “Zia heads provisional regime”

    Age, Australia
    “Pakistanis rally to Sheik’s call”

    Baltimore Sun, USA
    “Rebels report Bengali regime”

    Bangkok Post, Thailand
    “Dacca asks for more troops”

    Boston Globe, USA
    “E. Pakistan: Army claims control, but rebels report gains”

    Boston Globe, USA
    “Fighting wanes in East Pakistan as army tightens grip”

    Buenos Aires Herald, Argentina
    “Rebel government set up under army major”

    Chicago Tribune, USA
    “Report: E. Pakistan revolt crushed by West troops”

    Globe and Mail, Canada
    “Army in control of Dacca, banks to reopen, radio says”

    Hong Kong Standard, Hong Kong
    “Mujib sets up govt in E. Pak”

    Jakarta Times, Indonesia
    “Bangla Desh Republic Proclaimed”

    Los Angeles Times, USA
    “W. Pakistan reported in full control of Dacca”

    Manila Times, Philippines
    “Fighting continues in East Pakistan”

    New York Times, USA
    “Both sides claim gains in Pakistan; all news banned”

    Philadelphia Inquirer, USA
    “W. Pakistan controls Dacca; Death toll may reach 7000”

    Pretoria News, South Africa
    “Rebellion is over, says Pakistan”

    San Francisco Chronicle, USA
    “Confusing war reports in Pakistan”

    Straits Times, Singapore
    “Provisional government formed”

    Sydney Morning Herald, Australia
    “Major leads Dacca Govt”

    Washington Post, USA
    “Pakistan in control of Dacca”

    [March 30, 1971.]

    Manila Times, Philippines
    “Where is Sheikh Mujib?”

    Sydney Morning Herald, Australia
    “Rebels claim successes”

    [March 31, 1971.]

    Statesman (New Delhi), India
    “Jia Khan’s appeal for recognition”

    Times of India (Bombay), India
    “Bangla Desh Govt is sovereign and legal”

    Times of London, United Kingdom
    “President Yahya was advised against force”

    Bangkok Post, Thailand
    “‘War of the words’ rages in P’stan”


    Supporting documentation

    Swadhin Bangla Betar Kendra, The story of March 26, 1971, Bangladesh Observer, April 23, 1972.

    Sheikh Mujibur Rahman’s Declaration of Independence, Bangladesh Swadhinata Juddho: Dalil Potro, Volume 3, Government of the People’s Republic of Bangladesh, 1982.

    Ziaur Rahman’s Declaration of Independence, Bangladesh Swadhinata Juddho: Dalil Potro, Volume 3, Government of the People’s Republic of Bangladesh, 1982.

    Mujibnagar Proclamation of Independence, April 10, 1971, Bangladesh Swadhinata Juddho: Dalil Potro, Volume 3, Government of the People’s Republic of Bangladesh, 1982.

    Swadhin Bangla Betar Kendro transcripts (fragments), March 26-30, 1971, Bangladesh Swadhinata Juddho: Dalil Potro, Volume 5, Government of the People’s Republic of Bangladesh, 1982.

    Article on Swadhin Bangla Betar Kendro by Atikur Rahman published in Purbodesh, December 15, 1972, Bangladesh Swadhinata Juddho: Dalil Potro, Volume 5, Government of the People’s Republic of Bangladesh, 1982.

    Article on Swadhin Bangla Betar Kendro by Belal Mohammad, Bangladesh Swadhinata Juddho: Dalil Potro, Volume 5, Government of the People’s Republic of Bangladesh, 1982.

    Telex from March 26, 1971.


    MMR Jalal [http://www.sachalayatan.com/user/mmr_jalal] is a USA based archivist of the Bangladesh Liberation War. He maintains one of the largest private collections of liberation war documents in the world.


    Mashuqur Rahman [http://www.docstrangelove.com] is one of the highest read Bangladeshi-American bloggers. Critically acclaimed for his incisive analysis on Bangladesh, US foreign policy and dedicated advocacy of human rights.

    [Read posts by Mashuqur Rahman]


    410 Responses to “March 26, 1971: Declaration of Independence”

    1. Biplob Rahman

      Amader dhomonite shahider rokto, ai rokto kono din poravab mane na…

    2. Akash

      To Mr. MMR Jalal, my heartiest thanks for creating and maintaining this archive. For a nation that forgets, and for a nation that is so often confused and made to be confused about its recent past, the archive is an immeasurable and powerful treasure. I hope the information about the archive gets to be circulated through all relevant channels for anybody with access to the internet. Again, congratulations and thank you!

    3. Kaiser Kabir

      To the authors: You have done a wonderful service to generations present and future.

      Before logging on this morning I had just finished reading the same article in Forum and wanted to thank the writers. I’m glad I could do it so soon.

    4. Iconus Clustus

      Dear Jalal and Mash,

      I do not want to belittle your effort by thanking you… but, I must say that this has been a mammoth task and you guys have done it beautifylly!

      I have a question though… can you shed some light on the first few days of the independence struggle – that is – the days following Major Zia’s announcement as the provisional head of Bangla Liberation Army on the 27th of March ’71. Say – from the 26th up untill he met up with MAG Osmani to start serving the army as a sector commander. I wonder under whose directives he announced himself the “Provisional head” and how the transfer of power to Osmani occured, and things like that.

      Last but not the least – elements involved in rewriting and producing a distorted version of the nation’s history only to gain political grounds should also be exposed.

      Cheers!

    5. Mash

      Kaiser, thanks. I am very glad that Daily Star published it.

      Iconus, I had a link to a news report about Zia’s rendevouz with Khalid Musharraf and Shafiullah, but unfortunately the links are not part of this version here on EBD. You can check out the original post on my blog for all the links to the articles. Here’s a report from the Statesman of an interview with Khalid Musharraf in early April that explains the meet up. Osmani was made the commander-in-chief by the Mujibnagar government in early April (I have the sources for this offline, I will try to get this online soon). I will dig a little bit about the movements of the Majors in early April from the meetup to the formation of Mujibnagar govt. I know others have written about it extensively, but unfortunately I dont have a source to cite right at the moment.

      As for the “provisional head”, I think it was a propaganda ploy, like the news of Tikka Khan’s death and of large forces moving to Dhaka. From what I have read from memoirs of those who were there, it was decided to have a military person make such an announcement to give the impression that there was stiff resistance and that resistance was coordinated. Zia was the most senior officer there and was enlisted for this task. Indeed, there was resistance all around Bangladesh (in Dhaka, in Jessore, Kushtia, etc.) in the early days, but Swadhin Bangla Betar Kendra was able to give voice to this and make it seem organized to the outside world. They also had to explain where Sheikh Mujib was. So they went with saying that Mujib was at the “revolutionary headquarters” coordinating while Major Zia was the “provisional head” under Mujib’s guidance. It tried to explain away Mujib’s absence while at the same time making it seem like everything was organized.

      I tried however to stay away in the post from giving my interpretations of everyone’s actions. I think those who were there at the time have written eloquent commentaries that make fascinating and illuminating reads. Instead, Jalal bhai and I focused on establishing a timeline that could be backed up with what was actually reported at the time. Our hope, as you expressed in your last para, is to cut through the politics to a more realistic retelling of our history.

    6. Iconus Clustus

      Thanks a lot Mash. Will certainly read up on the articles. Thanks again.

    7. Harroon Sheikh

      Today I recall the contribution of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman’s historic 7th of March, 1971 speech at the then Race Course to inflame the masses into preparedness for the War of Independence.

      Without this legendary figure we would have remained enslaved forever by the Pakistanis, their allies the Nixon-Kissinger venomous nexus, the collaborators Jamaat-e-Islami and the Saudis. But soon after 1971 the vipers avenged their defeat in 1971 by assassinating the Founding Father with most of his family members in 1975.

      It seems that the same vipers are now bent on killing democracy in Bangladesh. I am sure democracy loving Bangladeshis will ultimately triumph over the same old moribund conspirators who were against Bangladesh’s independence.

    8. Jagorook Manush

      Mashuqur and Mahbubur, I tip my hat to you for this riveting account on the most important event of our history of independence. This is an epic work which reinstates and reinforces a glaring fact in our history that was banished since mid-August, 1975. The fact basically derives from the date of our independence day, which is March 26, not 27. Even today, present de facto military government nurtures that fallacy installed by their predecessors in our history. The objective of this heinous crime has been very simple but devastatingly far reaching; to establish supremacy of military command over political legacy. History writes the glorious legacy of our political process which culminated into liberation war and independent Bangladesh came into reality under the command of political leadership. Instead, our military wants to establish that the concept of independence was germinated overnight in the dream of a young unwilling Major who announced it from Kalurghat on March 27, 1971 and independence was achieved in nine month’s war solely under the military command, specifically under the command of one single sector commander Major Zia. Why they are so desperate to amplify a day-after announcement of independence to a mythical proportion that eclipses our nation’s history. It is a honest payback of our military for what they owe to General Zia. General Zia is the messiah of martial law in Bangladesh. He is the architect of physical annihilation of political leadership of liberation war and of freedom fighters within and outside Bangladesh Army. He has uprooted the constitution from the ground created by the protracted political struggle and imbued by the sacrifices of millions. Last but not the least, he has taught our patriot military how to make politics difficult for our politicians and how to make democracy dysfunctional planting a poison ivy like BNP.

      Dear M&M, Victors write the history. Since August 1975 till today, villains have been the victors in Bangladesh and through predictable future they will fill our history with their version of fictions and inventions. Day may come when our public will again rise in the spirit of 71 and truncheon these villains back to the wilderness of garrison and for good. Let us wait for that time when we, as a nation, will gratefully tip million hats to you for your relentless fight to reconstruct the spirit of 71 which is passing through an apocalypse now.

    9. sushanta

      মাশুকুর রহমান ও মাহবুবুর রহমান জালাল এর স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা বিষয়ক একটি সুন্দর প্রানবন্ত লেখা আজকের প্রথম আলোতে প্রকাশিত হয়েছে। এর ইংরেজী ভার্সনটির সাথে তাই বাংলা ভার্সন টি ও কমেন্ট আকারে দেওয়া হলো।

      ———————–

      স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা

      মাশুকুর রহমান

      মাহবুবুর রহমান জালাল

      ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের শুরুতেই পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ঢাকা বেতার কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। পাকিস্তানিরা রেডিও স্টেশনটির নতুন নাম দেয় ‘রেডিও পাকিস্তান ঢাকা’। এ কেন্দ্র থেকেই তারা সামরিক আইন জারির ঘোষণা দেয়। বাঙালিদের কন্ঠ রোধ করতে ইতিমধ্যেই পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর তৎপরতা শুরু হয়ে গিয়েছিল। তবে বাঙালিরা ঠিকই প্রতিরোধ গড়েছিল এবং লড়াইয়ে ফিরে এসেছিল। শুরু হয়ে গিয়েছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতার যুদ্ধ।
      বাঙালিদের ওপর পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর রক্তক্ষয়ী তীব্র আক্রমণ অবজ্ঞা করে ওই দিনই সন্ধ্যায় একটি ছোট রেডিও স্টেশন সম্প্রচার শুরু করেছিল। চট্টগ্রামের উত্তরে কালুরঘাট নামক স্থান থেকে গোপন ওই রেডিও স্টেশনটি বিশ্ববাসীর কাছে ঘোষণা করে: ‘শেখ পূর্ব পাকিস্তানের সাড়ে সাত কোটি নাগরিককে সার্বভৌম স্বাধীন বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন।’ রেডিও স্টেশনটি নিজের নামকরণ করে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র।
      পরবর্তী চার দিন পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সঙ্গে রেডিও স্টেশনটির প্রচারণা যুদ্ধ চলে। যখন পাকিস্তানি সেনাবাহিনী দাবি করে বাংলাদেশে সব কিছুই শান্ত, তখন গোপন রেডিও স্টেশনটি ঘোষণা করে, মুক্তি বাহিনীরা রাজধানীর দিকে এগিয়ে আসছে এবং পাকিস্তানি সেনারা আত্মসমর্পণ করছে। পাকিস্তানি সেনাবাহিনী দাবি করে, তারা বাঙালিদের ইচ্ছাকে গুঁড়িয়ে দিয়েছে। আর গোপন রেডিও স্টেশনটি ঘোষণা করে, পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর গভর্নর জেনারেল টিਆা খান গুপ্ত হত্যার শিকার হয়েছেন। পাকিস্তানি সেনাবাহিনী দাবি করে, বাঙালিরা পরাজিত হয়েছে, অন্যদিকে গোপন রেডিও দাবি করে, বাংলাদেশের একটি প্রাদেশিক সরকার গঠন করা হয়েছে।
      গণহত্যার শুরুর দিনগুলোতে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র বিশ্বের কাছে ঘোষণা দেয়, বাঙালিরা ছাড় দেবে না, বাঙালিরা যুদ্ধ করবে এবং তাদের আত্মত্যাগ বৃথা যাবে না। বিশ্ব গোপন ওই রেডিওর ঘোষণা শুনেছিল। মার্চের সংকটময় ওই পাঁচ দিন কালুরঘাটের ছোট রেডিও স্টেশনটি কখনো নীরব হয়নি। রেডিও স্টেশনটি বাঙালিদের মনোবলকে পুনরুদ্ধার করেছিল এবং পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে হতাশায় ডুবিয়েছিল।
      স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের নারী ও পুরুষেরা এবং ইস্টবেঙ্গল রেজিমেন্টের সদস্যরা রেডিও স্টেশনটিকে আক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করেছিল। পাশাপাশি বিশ্বের কাছে ঘোষণা করেছিল, সংগঠিত বাঙালি প্রতিরোধ নতুন উদ্যমে লড়াইয়ে ফিরে এসেছে। পাকিস্তানি ট্যাংক ও যুদ্ধবিমান বাংলাদেশের সাড়ে সাত কোটি মানুষের কন্ঠকে দাবিয়ে রাখতে পারবে না, বিষয়টি তারা নিশ্চিত করেছিল।

      পরিবর্তিত ঐতিহাসিক দলিল
      ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ কীভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয়েছিল, তার ইতিহাস সঠিকভাবে প্রতিফলনের লক্ষ্যে সম্প্রতি সরকার দেশের পাঠ্যপুস্তকে ইতিহাস সংশোধনের উদ্যোগ নিয়েছে। গত তিন দশক ধরে আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের রশি টানাটানির মধ্যে বাংলাদেশের ইতিহাস একাধিকবার নতুন করে লেখা হয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণায় শেখ মুজিবুর রহমান ও জিয়াউর রহমানের ভুমিকার প্রতিফলন ঘটাতে গিয়ে বিদ্যালয়ের পাঠ্যপুস্তকসমূহ একাধিকবার পুনর্লিখিত হয়েছে।
      ইতিহাস বই সংশোধনের ক্ষেত্রে বর্তমান সরকার নির্ভর করেছে স্বাধীনতাযুদ্ধের ব্যাপারে সরকারের আনুষ্ঠানিক ইতিহাসের ওপর, যা বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ১৯৮২ সালে প্রকাশিত হয়েছিল।
      আনুষ্ঠানিক ইতিহাস থেকে নিচের কালক্রমটি পাওয়া যায়:
       ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ মধ্যরাতের পর থেকে ২৬ মার্চ ভোরের কোনো এক সময়ের মধ্যে শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার একটি ঘোষণাপত্র লিখেছিলেন।
       ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ চট্টগ্রামের কালুরঘাট থেকে শেখ মুজিবুর রহমানের ঘোষণাপত্রটি সম্প্রচার করা হয়। তবে খুব কম মানুষই সম্প্রচারিত ঘোষণাটি শুনতে পেয়েছিল।
       ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের তৎকালীন মেজর জিয়াউর রহমান ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ কালুরঘাট থেকে শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে একটি ঘোষণা পাঠ করেন। ওই ঘোষণা বিদেশি সংবাদমাধ্যমগুলো শুনতে পেয়েছিল এবং বিশ্ব বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণার ব্যাপারে জানতে পারে।
      উপরোক্ত কালক্রম অনুযায়ী, ২৭ মার্চ মেজর জিয়াউর রহমানের ঘোষণা পাঠের আগ পর্যন্ত বহির্বিশ্ব বাংলাদেশের স্বাধীনতার কথা শুনতে পায়নি।
      স্বাধীনতার ঘোষণার এই বিবরণটি ব্যাপকভাবে গৃহীত হয়েছে এবং প্রথাগত বিচক্ষণতায় প্রতিফলন ঘটিয়েছে। এটা গত তিন দশক ধরে তৈরি হয়েছে। উদাহরণ হিসেবে, জনপ্রিয় ইন্টারনেট বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়ায় কালুরঘাট রেডিও ট্রান্সমিটার-বিষয়ক নিবন্ধে বলা হয়েছে: ‘১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ এম এ হান্নান স্বাধীনতার প্রথম ঘোষণার একটি ইংরেজি অনুবাদ পাঠ করেছিলেন……ধারণা করা হয়, স্বাধীনতার প্রথম ঘোষণা বিশ্ব গণমাধ্যম ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে ব্যাপকভাবে পৌঁছায়নি।’
      মেজর জিয়াউর রহমানের শুরুর কথাগুলো ছিল বাংলায় ‘আমি মেজর জিয়া বলছি’। এরপর তিনি সার্বভৌম-স্বাধীন বাংলাদেশের ঘোষণা পাঠ করেন, যা বার্তা সংস্থাগুলো শুনতে পেয়েছিল এবং তারা তা সারা বিশ্বে ব্যাপকভাবে প্রচার করে।
      জিয়াউর রহমানের ঘোষণা প্রথম শুনতে পায় চট্টগ্রাম বন্দরে নোঙর করা একটি জাপানি জাহাজ। তারা তাৎক্ষণিকভাবে তা সারা বিশ্বের কাছে প্রচার করে। জিয়ার ঘোষণার সংবাদ প্রথম সম্প্রচার করে রেডিও অস্ট্রেলিয়া এবং বিশ্ব বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের কথা বিস্তারিত জানতে পারে।
      তবে বাস্তবতা আর প্রামাণিক দলিলপত্রে সম্পুর্ণ ভিন্ন চিত্র ফুটে ওঠে।

      মার্চ ২৬, ১৯৭১: কালুরঘাট থেকে ঘোষণা
      ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ সন্ধ্যায় বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা নিয়ে সারা বিশ্বের ইংরেজি ভাষার শীর্ষস্থানীয় দৈনিকগুলোতে খবর প্রকাশিত হয়। এসব দৈনিকের ওপর একটি জরিপ চালানো হয়েছে। এতে দেখা যায়, ২৬ মার্চ সকালে কলকাতায় পৌঁছা শেখ মুজিবুর রহমানের প্রকৃত বার্তা থেকে এবং ২৬ মার্চ সন্ধ্যায় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সম্প্রচার থেকে সারা বিশ্ব বাংলাদেশের স্বাধীনতার কথা জানতে পারে।
      ১৯৭১ সালের মার্চে বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে কীভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণার খবর প্রকাশিত হয়েছিল, তা পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য নিম্নলিখিত ইংরেজি দৈনিকগুলোতে জরিপ চালানো হয়েছিল: ভারতের দ্য স্টেটসম্যান এবং দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া; আর্জেন্টিনার বুয়েন্স এয়ার্স হেরাল্ড; অস্ট্রেলিয়ার দ্য এজ এবং দ্য সিডনি মর্নিং হেরাল্ড; মিয়ানমারের দ্য গার্ডিয়ান; কানাডার দ্য গ্লোব অ্যান্ড মেইল; হংকংয়ের দ্য হংকং স্ট্যান্ডার্ড; ইন্দোনেশিয়ার দ্য জাকার্তা টাইমস; জাপানের আসাহি ইভিনিং নিউজ; নেপালের দ্য রাইজিং নেপাল; ফিলিপাইনের ম্যানিলা টাইমস; সিঙ্গাপুরের দ্য স্ট্রেইটস টাইমস; দক্ষিণ আফ্রিকার দ্য প্রিটোরিয়া নিউজ; থাইল্যান্ডের দ্য ব্যাংকক পোস্ট; যুক্তরাজ্যের দ্য ডেইলি টেলিগ্রাফ, দ্য গার্ডিয়ান, দ্য টাইমস অব লন্ডন; যুক্তরাষ্ট্রের বাল্টিমোর সান, দ্য বোস্টন গ্লোব, শিকাগো টাইমস, ক্রিস্টিয়ান সায়েন্স মনিটর, লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস, দ্য নিউইয়র্ক টাইমস, দ্য ফিলাডেলফিয়া ইনকুরিয়ার, সানফ্রান্সিসকো ক্রোনিকেল এবং দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট।
      ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ নয়াদিল্লি থেকে প্রকাশিত দ্য স্টেটসম্যানে ২৬ মার্চ পাওয়া দুটি বার্তার ব্যাখ্যা দেওয়া হয়:
      পাকিস্তানি বাহিনী আন্দোলনকে চাপা দিতে অগ্রসর হওয়ার পর শুক্রবার শেখ মুজিবুর রহমান দুটি বার্তা সম্প্রচার করেছেন। ইউএনআই এ কথা জানায়।
      একটি অজ্ঞাত রেডিও স্টেশন থেকে বিশ্বের কাছে পাঠানো এক বার্তায় আওয়ামী লীগ নেতা (শেখ মুজিব) ঘোষণা দিয়েছেন যে ‘শত্রু’ আঘাত হেনেছে এবং জনগণ বীরের মতো লড়াই করছে। বার্তাটি কলকাতা থেকে শোনা হয়েছে।
      রেডিও স্টেশনটি নিজেকে ‘স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র’ হিসেবে বর্ণনা করেছে। শিলং থেকে শোনা স্টেশনটির পরবর্তী সম্প্রচারে তিনি বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন প্রজাতন্ত্র ঘোষণা করেছেন।
      ২৭ মার্চ কলকাতা থেকে প্রকাশিত দ্য স্টেটসম্যান-এ আগের দিনের দুটি বার্তা তুলে ধরা হয় এভাবে:
      একটি অজ্ঞাত রেডিও স্টেশনের মাধ্যমে আজ সকালে বিশ্বের কাছে পাঠানো এক বার্তায় জনাব রহমান (শেখ মুজিব) ঘোষণা দিয়েছেন যে শত্রু আঘাত হেনেছে এবং জনগণ বীরের মতো লড়াই করছে। বার্তাটি কলকাতা থেকে শোনা হয়েছে।
      রেডিও স্টেশনটি নিজেকে ‘স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র’ হিসেবে বর্ণনা করেছে। শিলং থেকে শোনা স্টেশনটির পরবর্তী সম্প্রচারে তিনি বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন প্রজাতন্ত্র ঘোষণা করেছেন।
      ২৭ মার্চ মুম্বাই থেকে প্রকাশিত দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া সকালের প্রথম সম্প্রচার থেকে পাওয়া বার্তার বিষয়বস্তু প্রকাশ করে:
      আজ বিশ্বের কাছে পাঠানো এক বার্তায় শেখ মুজিবুর রহমান বলেছেন, বাংলাদেশের জনগণ নিজেদের স্বাধীনতার জন্য বীরের মতো লড়াই করছে।
      একটি অজ্ঞাত রেডিও স্টেশনের মাধ্যমে সম্প্রচারিত ওই বার্তা মুম্বাই থেকে শোনা গেছে।
      ধারণা করা হচ্ছে, রেডিও স্টেশনটি পূর্ব পাকিস্তানের চট্টগ্রাম অথবা চালনায় অবস্িথত।
      বার্তায় জনাব রহমান বলেন: ‘আজ রাত ১২টার দিকে পাকিস্তানি সশস্ত্র বাহিনী হঠাৎ করে পিলখানা ও রাজারবাগে পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলস ঘাঁটিতে হামলা চালায়। হামলায় অসংখ্য (নিরস্ত্র) মানুষ নিহত হয়।
      ‘ঢাকায় ইপিআর ও পুলিশ বাহিনীর সঙ্গে কঠিন লড়াই চলছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য জনগণ অকুতোভয়ে শত্রুর সঙ্গে লড়াই করছে।
      ‘বাংলাদেশের সর্বস্তরের মানুষ অবশ্যই যেকোনো মূল্যে দেশের প্রতিটি কোণে শত্রু বাহিনীকে প্রতিরোধ করবে।
      ‘আল্লাহ আপনাদের সহায় হোন এবং শত্রুর কাছ থেকে স্বাধীনতার জন্য লড়াইয়ে তিনি আপনাদের সাহায্য করবেন। জয় বাংলা।’
      ২৭ মার্চ নয়াদিল্লি থেকে প্রকাশিত দ্য স্টেটসম্যানও প্রথম বার্তার বিষয়বস্তু প্রকাশ করে:
      জনাব রহমান (শেখ মুজিব) বলেছেন, ‘২৬ মার্চ রাত ১২টার দিকে পাকিস্তানি সশস্ত্র বাহিনী হঠাৎ করে পিলখানায় ও রাজারবাগে পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলস ঘাঁটিতে হামলা চালায়। এতে অসংখ্য নিরস্ত্র মানুষ নিহত হয়। ঢাকায় পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলসের সঙ্গে সশস্ত্র সংগ্রাম চলছে।
      ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য জনগণ বীরের মতো শত্রুর সঙ্গে লড়াই করছে। যেকোনো মূল্যে দেশের প্রতিটি কোনায় শত্রু বাহিনীকে প্রতিরোধের জন্য বাংলাদেশের সর্বস্তরের মানুষের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। আল্লাহ আপনাদের সহায় হোন এবং শত্রুর কাছ থেকে স্বাধীনতার জন্য লড়াইয়ে তিনি আপনাদের সাহায্য করবেন। জয় বাংলা।’
      ২৬ মার্চ সন্ধ্যায় কালুরঘাটে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র প্রথম জীবন্ত হয়ে ওঠে এবং বেশ কিছু বার্তা সম্প্রচার করে। সম্প্রচারিত বার্তাগুলোর সবই ধারণ করা হয় এবং এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ হলো, ওই দিন সন্ধ্যায় কালুরঘাটের একটি রিপোর্ট ভারতে ধারণ করা হয়। এতে বলা হয়, ‘শেখ পূর্ব পাকিস্তানের সাড়ে সাত কোটি নাগরিককে সার্বভৌম-স্বাধীন বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে ঘোষণা করেছেন।’
      এই ঘোষণা এবং এর আগের বার্তা ২৬ মার্চ সন্ধ্যায় সারা বিশ্বে প্রচার করা হয়। এভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা বিশ্বের প্রায় সব সংবাদপত্রেই প্রথম পাতায় ছাপা হয়। বিশ্বের অনেক শীর্ষ সংবাদপত্র পরের দিন অর্থাৎ ২৭ মার্চ এ খবর প্রকাশ করে। উদাহরণ হিসেবে লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস ২৭ মার্চ এ ব্যাপারে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে বলা হয়:
      শেখ মুজিবুর রহমান শুক্রবার পূর্ব পাকিস্তানের জন্য স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন। ইসলামী জাতিটির (পাকিস্তান) দুই অংশের মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে চলতে থাকা অসন্তোষ গৃহযুদ্ধে রূপ নেওয়ায় তিনি এ ঘোষণা দেন।
      ‘দ্য ভয়েস অব ইনডিপেনডেন্ট বাংলা দেশ’ নামে একটি গোপন রেডিও থেকে সম্প্রচারিত বার্তায় বলা হয়েছে, ‘শেখ মুজিব পূর্ব পাকিস্তানের সাড়ে সাত কোটি নাগরিককে সার্বভৌম-স্বাধীন বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে ঘোষণা করেছেন।’
      দালিলিক প্রমাণ নিশ্চিত করে, ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ কালুরঘাটে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে সম্প্রচারিত বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা শোনা গিয়েছিল এবং পরের দিন সকালে এ নিয়ে বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছিল।
      ১৯৭২ সালের ২৩ এপ্রিল বাংলাদেশ অবজারভার-এ প্রকাশিত একটি নিবন্ধ অনুযায়ী, ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ সন্ধ্যায় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণা প্রথম ইংরেজিতে পাঠ করেন ওয়াপদার প্রকৌশলী আশিকুল ইসলাম। আর প্রথম বাংলায় পাঠ করেন আবুশ কাশেম সন্দ্বীপ। সন্ধ্যায় এম এ হান্নানও একটি বক্তৃতায় ঘোষণাটি পাঠ করেন।

      মার্চ ২৭, ১৯৭১: মেজর জিয়ার ঘোষণা
      ২৬ মার্চ থেকে ৩০ মার্চ পর্যন্ত স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র কালুরঘাট থেকে অব্যাহতভাবে সম্প্রচার চালিয়ে যায়। ৩০ মার্চ পাকিস্তানি বিমান হামলা করে বেতার কেন্দ্রটি গুঁড়িয়ে দেয়।
      ২৮ মার্চ ভারতীয় সংবাদপত্রগুলো খবর প্রকাশ করে, ‘জিয়া খান’ নামে এক মেজর ২৭ মার্চ একটি ঘোষণা পাঠ করেন। ঘোষক জিয়া খানকে ‘বাংলাদেশ মুক্তি সেনার প্রধান’ হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেন।
      ২৮ মার্চ নয়াদিল্লি থেকে প্রকাশিত দ্য স্টেটসম্যান জানায়: আরেকটি ঘোষণায় রেডিওটি দাবি করেছে, বাংলাদেশের পর পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ বেলুচিস্তানের স্বাধীনতাকামী জনগণ এবং পাখতুনিস্তান স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছে।
      রেডিওতে কথা বলা ওই ব্যক্তিটি হলেন ‘বাংলাদেশ মুক্তি সেনার প্রধান মেজর জিয়া’।
      ২৮ মার্চ মুম্বাই থেকে প্রকাশিত দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়:
      বাংলাদেশ মুক্তি সেনার প্রধান মেজর জিয়া খান আজ রাতে স্বাধীন বাংলা রেডিওতে ঘোষণা দেন, দু-তিন দিনের মধ্যেই পাকিস্তানি সামরিক প্রশাসন থেকে বাংলাদেশ মুক্ত হবে।
      তিনি বলেন, আত্মসমর্পণ না করলে পশ্চিম পাঞ্জাবি সৈনিকেরা ‘নিশ্চিহ্ন হবে’।
      ওই প্রতিবেদনে মেজর জিয়াউর রহমানকে ‘জিয়া খান’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। প্রতিবেদনে মেজর জিয়া কর্তৃক ২৭ মার্চ স্বাধীনতার ঘোষণা দেওয়ার কোনো উল্লেখ করা হয়নি।
      ২৮ মার্চ ভারতীয় পত্রপত্রিকার এ দুটি প্রতিবেদন বিশ্ব সংবাদমাধ্যম প্রচার করেনি। ভারতীয় পত্রপত্রিকা ছাড়াও ২৮ মার্চ প্রকাশিত সারা বিশ্বের প্রধান ইংরেজি সংবাদপত্রগুলোর ওপর পরিচালিত জরিপেও ২৭ মার্চ মেজর জিয়ার সম্প্রচারের ব্যাপারে কোনো প্রতিবেদন পাওয়া যায়নি।

      মার্চ ২৮, ১৯৭১: মেজর জিয়া এবং বাংলাদেশের ‘প্রাদেশিক সরকার’
      ২৮ মার্চ স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে ঘোষণা দেওয়া হয় বাংলাদেশের একটি প্রাদেশিক সরকার গঠন করা হয়েছে এবং মেজর জিয়াকে প্রাদেশিক সরকারের অস্থায়ী প্রধান ঘোষণা করা হয়েছে। কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র ঘোষণা করে, প্রাদেশিক সরকারের দিকনির্দেশনা দেবেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ঘোষণাটি ভারতে শোনা যায় এবং এবারও ভারত মেজর জিয়াউর রহমানকে শুধু মেজর জিয়া খান হিসেবে উল্লেখ করে।
      নিজেকে প্রাদেশিক প্রধান হিসেবে ঘোষণা দেওয়া মেজর জিয়ার একটি বক্তৃতা ২৯ মার্চ নয়াদিল্লি থেকে প্রকাশিত দ্য স্টেটসম্যান পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এতে বলা হয়:
      স্বাধীন বাংলা বেতারের এক সম্প্রচারে ‘মুক্তি সেনা’র কমান্ডার ইন চিফ মেজর জিয়া খান বলেছেন, ‘আমি এতদ্দ্বারা স্বাধীন বাংলাদেশের মুক্তি বাহনীর প্রাদেশিক প্রধানের দায়িত্ব গ্রহণ করছি।
      প্রাদেশিক প্রধান হিসেবে আমি বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের চুড়ান্ত বিজয় না হওয়া পর্যন্ত সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার আদেশ দিচ্ছি। জয় বাংলা।’
      তিনি বলেন, ‘শত্রুরা আকাশ ও সমুদ্রপথে অতিরিক্ত সৈন্য নিয়ে এসেছে।’ বাংলাদেশের যুদ্ধরত গণতন্ত্রমনা জনগণের সাহায্যে এগিয়ে আসতে তিনি বিশ্বের সব শান্তিকামী জনগণের প্রতি আবেদন জানান।
      মেজর জিয়া দাবি করেন, ‘মুক্তি সেনারা’ কুমিল্লায় পাঞ্জাব রেজিমেন্টের ৩০০ জনকে হত্যা করেছে। যুদ্ধের শেষে রেজিমেন্টের অন্যরা পালিয়ে গেছে।
      মেজর জিয়া খানকে অস্থায়ী প্রধান করে প্রাদেশিক সরকার গঠনের খবর ২৯ মার্চ বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে ব্যাপক প্রচার পায়। উদাহরণ হিসেবে, ২৯ মার্চ অস্ট্রেলিয়ার দ্য এজ জানায়:
      পূর্ব পাকিস্তানের নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের সমর্থকেরা মেজর জিয়া খানের অস্থায়ী নেতৃত্বের অধীনে আজ একটি প্রাদেশিক সরকার গঠন করেছে।
      একটি বিদ্রোহী রেডিও নতুন সরকার গঠনের ঘোষণা দেয়। রেডিওটি মেজর জিয়াকে শেখ মুজিবের আওয়ামী লীগের মুক্তি সেনার প্রধান হিসেবে পরিচয় দেয়। তবে শেখ মুজিবকে কেন সরকারের প্রধান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়নি, সে ব্যাপারে রেডিওটি কোনো ব্যাখ্যা দেয়নি।
      ২৯ মার্চও বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে কোথাও মেজর জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণার কথা বলা হয়নি।

      মার্চ ৩০, ১৯৭১: দলিলপত্র এবং সংবাদ প্রতিবেদন
      ১৯৮২ সালে ১৫ খন্ডে প্রকাশিত মুক্তিযুদ্ধ-বিষয়ক বাংলাদেশ সরকারের আনুষ্ঠানিক দলিলকে বলা হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধ: দলিলপত্র। পাঠ্যপুস্তক সংশোধনে বর্তমান সরকার এটি ব্যবহার করছে। এর তৃতীয় খন্ডে মেজর জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণার বিষয়বস্তু সন্নিবেশিত আছে। সেটা এ রকম:
      বাংলাদেশ মুক্তি সেনার প্রাদেশিক কমান্ডার ইন চিফ মেজর জিয়া এতদ্দ্বারা শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে স্বাধীনতা ঘোষণা করছি।
      আমি আরও ঘোষণা করছি, আমরা ইতিমধ্যেই শেখ মুজিবুর রহমানের অধীনে একটি সার্বভৌম, বৈধ সরকার গঠন করেছি, যা আইন ও সংবিধান অনুযায়ী পরিচালিত হতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। নতুন গণতান্ত্রিক সরকার আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে নন-অ্যালাইনমেন্ট নীতির প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ। বাংলাদেশ সব জাতির সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে আগ্রহী হবে এবং আন্তর্জাতিক শান্তির জন্য প্রাণপণে চেষ্টা করবে। বাংলাদেশে বর্বর গণহত্যার বিরুদ্ধে জনমত সৃষ্টির জন্য আমি সব সরকারের প্রতি আবেদন জানাচ্ছি।
      শেখ মুজিবুর রহমানের অধীনে এই সরকার বাংলাদেশের সার্বভৌম বৈধ সরকার এবং বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক জাতির কাছ থেকে এ সরকারের স্বীকৃতি পাওয়ার অধিকার আছে।’
      দলিলপত্র অনুযায়ী জিয়াউর রহমান এই বক্তৃতা দিয়েছিলেন ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ। দলিলপত্রে এর সুত্র হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে একই দিন নয়াদিল্লি থেকে প্রকাশিত দ্য স্টেটসম্যান পত্রিকার। তবে স্টেটসম্যান পত্রিকায় ২৭ মার্চ সংখ্যায় এই বক্তৃতা ধারণ করা নেই।
      দলিলপত্রে উল্লেখিত মেজর জিয়ার বক্তৃতার প্রথম রিপোর্ট ভারতীয় পত্রপত্রিকায় পাওয়া যায় ১৯৭১ সালের ৩১ মার্চ। ভারতীয় প্রতিবেদন অনুযায়ী ওই বক্তৃতা স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে ৩০ মার্চ সকালে সম্প্রচারিত হয়েছিল।
      ৩১ মার্চ নয়াদিল্লি থেকে প্রকাশিত স্টেটসম্যান পত্রিকার ৯ নম্বর পৃষ্ঠায় একটি প্রতিবেদন আছে এ রকম:
      কলকাতা, মার্চ ৩০: শেখ মুজিবুর রহমানের অধীনে গঠিত সরকার বাংলাদেশের সার্বভৌম বৈধ সরকার এবং বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক দেশের কাছ থেকে এর স্বীকৃতি পাওয়ার অধিকার আছে। মুক্তি সেনার প্রাদেশিক কমান্ডার ইন চিফ মেজর জিয়া খান আজ সকালে এ ঘোষণা দেন। ইউএনআই এ কথা জানিয়েছে।
      স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে সম্প্রচারিত বার্তায় শেখের পক্ষে মেজর জিয়া খান বলেন, ‘নতুন গণতান্ত্রিক সরকার আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে নন-অ্যালাইনমেন্ট নীতির প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ। বাংলাদেশ সব জাতির সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে আগ্রহী হবে এবং আন্তর্জাতিক শান্তির জন্য প্রাণপণে চেষ্টা করবে।
      ‘আমরা ইতিমধ্যেই শেখ মুজিবুর রহমানের অধীনে একটি সার্বভৌম, বৈধ সরকার গঠন করেছি, যা আইন ও সংবিধান অনুযায়ী পরিচালিত হতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।
      ‘বাংলাদেশের বৈধ গণতান্ত্রিক সরকারকে দ্রুত স্বীকৃতি দিতে আমরা বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক ও শান্তিকামী দেশের কাছে আবেদন জানাচ্ছি।’ বাংলাদেশে ‘বর্বর গণহত্যা’র বিরুদ্ধে নিজ নিজ দেশে জনমত সৃষ্টির জন্য তিনি সব সরকারের প্রতি আবেদন জানান।
      ‘মেজর জিয়া খান বলেন, পাকিস্তান সরকার পরস্পরবিরোধী বিবৃতির মাধ্যমে বিশ্বের জনগণকে বিভ্রান্ত ও ধোঁকা দেওয়ার চেষ্টা করছে।
      ‘তবে ইয়াহিয়া খান ও তাঁর সহযোগীদের দ্বারা কেউ বিভ্রান্ত হবে না।
      ৩১ মার্চ মুম্বাই থেকে প্রকাশিত টাইমস অব ইন্ডিয়া ১৫ নম্বর পৃষ্ঠার একটি খবরে বলা হয়েছে:
      কলকাতা, মার্চ ৩০: শেখ মুজিবুর রহমানের অধীনে গঠিত সরকার বাংলাদেশের সার্বভৌম বৈধ সরকার এবং ‘বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক দেশের কাছ থেকে এর স্বীকৃতি’ পাওয়ার অধিকার আছে। মুক্তি সেনার প্রাদেশিক কমান্ডার ইন চিফ মেজর জিয়া খান আজ সকালে এ ঘোষণা দেন।
      স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে সম্প্রচারিত বার্তায় শেখের পক্ষে মেজর জিয়া খান বলেন, ‘নতুন গণতান্ত্রিক সরকার আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে নন-অ্যালাইনমেন্ট নীতির প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ। বাংলাদেশ সব জাতির সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে আগ্রহী হবে এবং আন্তর্জাতিক শান্তির জন্য প্রাণপণে চেষ্টা করবে।’
      মেজর জিয়া সম্প্রচার শুরু করেন এ কথাগুলো দিয়ে: ‘আমি, মেজর জিয়া, বাংলা মুক্তিবাহিনীর প্রাদেশিক কমান্ডার ইন চিফ এতদ্দ্বারা শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করছি।
      ‘আমি আরও ঘোষণা করছি,’ তিনি বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যেই শেখ মুজিবুর রহমানের অধীনে একটি সার্বভৌম, বৈধ সরকার গঠন করেছি। যা আইন ও সংবিধান অনুযায়ী পরিচালিত হতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।’
      ৩০ মার্চ মেজর জিয়ার দেওয়া বক্তৃতার ব্যাপারে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছিল ৩১ মার্চ, যা বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রচার পায়নি। জরিপ অনুযায়ী ৩০ মার্চ সকালে মেজর জিয়ার দেওয়া স্বাধীনতার ঘোষণা ভারতের বাইরে বিশ্বের ইংরেজি ভাষার কোনো পত্রিকাতেই প্রকাশিত হয়নি।

      উপসংহার
      ৩০ মার্চ বিকেলে কালুরঘাট থেকে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সম্প্রচার বন্ধ হওয়ার পর মেজর জিয়া ব্রাਜ਼ণবাড়িয়া যান এবং ৩ এপ্রিল তিনি মেজর খালেদ মোশাররফ ও মেজর সফিউল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এরপর তিনি মুক্তি বাহিনীর কমান্ডার ইন চিফ কর্নেল এম এ জি ওসমানীর অধীনে সেক্টর কমান্ডার হিসেবে যুদ্ধ শুরু করেন।
      গত তিন দশক ধরে বাংলাদেশের আনুষ্ঠানিক ইতিহাস একাধিকবার নতুন করে লেখার কারণে প্রথাগত বিচক্ষণতার সঙ্গে দ্বন্দ্বের সৃষ্ট হয়েছিল। ১৯৭১ সালের শেষ দিকে বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনসমূহ বিষয়টি স্পষ্ট করেছে যে ২৬ মার্চ স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে সম্প্রচারিত ঘোষণার ভিত্তিতেই সারা বিশ্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা ব্যাপক প্রচার পেয়েছিল। এ ব্যাপারে সন্দেহ নেই যে মধ্যরাতে ঢাকায় ইপিআর ও পুলিশ ব্যারাকের ওপর হামলার ব্যাপারে শেখ মুজিবুর রহমানের প্রকৃত বার্তা বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে ব্যাপক প্রচার পেয়েছিল। যদিও প্রাদেশিক সরকার গঠনের ব্যাপারে ২৮ মার্চ কালুরঘাট থেকে মেজর জিয়ার ঘোষণাও বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে প্রচার পেয়েছিল। তবে স্বাধীনতার ঘোষণার জন্য বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে মেজর জিয়াকে কোনো কৃতিত্ব দেওয়া হয়নি।

       মাশুকুর রহমান: ফ্রিল্যান্স লেখক
      মাহবুবুর রহমান জালাল: ‘বাংলাদেশ লিবারেশন ওয়ার ডকুমেন্টস’-এর কর্মী
      ডেইলি স্টারে প্রকাশিত
      অনুবাদ: মোহাম্মদ রকিবুল ইসলাম

    10. Engr. Khondkar Abdus Saleque

      If one can retrieve the early moring news of BBC Bangla service on 26th March 1971( Bangladesh time 0700 AM one will hear about the news about the declaration of Independence by Bangabandhu. I was about 17 at that time and was getting training in Khulana for joing the liberation war. In my brothers house at Munshipar i heard” Pak shenara gato rate Dhaka shaho shara deshe gano hatya shuru koechey. Ajana betar kendra thekey Bangabandhu bangladeshser shadinata ghoshona koechen”.
      If someone can retrieve the news acseete from BBC bangla service archive this will dispel the doubt about the declaration of indepence once for all.

    Comments are closed.